প্রথমবার সহবাসের ‌ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা ও অনিয়মিত ঋতুস্রাবে করণীয়

 আসসালামু আলাইকুম প্রিয় ভাই ও বোনেরা।

মানুষের ব্যক্তিগত জীবনে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়।
আমরা অনেক সমস্যা অনেক সময় কারো সঙ্গে শেয়ার করি না।

মহিলাদের অনিয়মিত মাসিক হওয়ার কারণ


কিন্তু অবশ্যই আপনার সমস্যা বিষয়গুলি অভিজ্ঞ কারও সঙ্গে শেয়ার করাটাই উত্তম।

আমরা যে বিষয়গুলো কারও সঙ্গে শেয়ার করি না এমনকি অনেক সময় ডাক্তারের সঙ্গে লুকোচুরি করে সে বিষয়গুলোর মধ্যে সবচাইতে বেশি হচ্ছে স্ত্রীর সঙ্গে মিলন ও সহবাস এর পরবর্তী সমস্যা নিয়ে।

তাই এই বিষয়গুলো অনেকে আমরা নিজে থেকে খোঁজার চেষ্টা করে।

তাই আমরা গুগলে সার্চ করার মাধ্যমে বিষয়গুলো করে থাকি।

আজ আমি আপনাদেরকে অবশ্যই এই বিষয়ে মোটামুটি সাহায্য করার চেষ্টা করব।

আজকে আমাদের আলোচনার বিষয়গুলো হচ্ছেঃ 

√ সহবাসের পর পেট ব্যথা হলে কি করণীয়
√ প্রথমবার সহবাসের পর মাসিক না হওয়ার কারণ
√ প্রথমবার সহবাসের পর রক্তক্ষরণ হলে করণীয় 
√ নিয়মিত মাসিক কত দিন পর পর হয়
√ মাসিক চলাকালীন সহবাস করা নিরাপদ কি না
√ দেরিতে মাসিক হওয়ার কারণ কি
√ নিয়মিত মাসিক না হওয়ার কারণ
√ মাসিক না হলে কতদিন পর প্রেগনেন্সি টেস্ট করবো
√ মাসিক হওয়ার কতদিন আগে নিরাপদ সহবাস করা যায়
√ মাসিক হওয়ার কতদিন পর নিরাপদ সহবাস করা যায়

👉 সহবাসের পর পেট ব্যথা হলে করণীয় কি?


বিবাহের পরে প্রথমবার সহবাসের ক্ষেত্রে পেট ব্যথা হওয়া স্বাভাবিক। কারণ প্রথমবার সহবাসের ক্ষেত্রে বিভিন্ন বাধা ও প্রতিকূল অবস্থার সম্মুখীন হতে হয়। তাছাড়া প্রথমবার সহবাসের শরীরের বিভিন্ন মাংসপেশিতে ঝাকি লাগে। এবং বিভিন্ন মাংসপেশিতে আঘাতের ফলে পেট ব্যথা হতে পারে তবে এটা বেশিক্ষণ স্থায়ী থাকে না। আবার অনেক ক্ষেত্রে দীর্ঘদিন পর সহবাস করার কারণে পেট ব্যথা হতে পারে। এটাও সেই একই বিষয়। তবে ব্যথা খুব বেশি হলে অবশ্যই ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে। 


👉 প্রথমবার সহবাসের পর মাসিক না হওয়ার কারণ?

এটি খুবই একটি সাধারণ বিষয়, প্রথমবার সহবাসের পর স্ত্রী প্রেগন্যান্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আমরা প্রথমবার সহবাসের সময় অনেকে আবেগপ্রবণ হয়ে যায় তাই কোন প্রকার পটেকশন ছাড়াই অনিরাপদ সহবাসের জড়িয়ে পড়ি। এবং আমরা অনেকে ধারণা করি শুধু একবার অনিরাপদ যৌন মিলন করলে প্রেগনেন্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না। আমাদের এই ধারণাটা একদম ভুল।

তাই প্রথমবার সহবাসের পর মাসিক না হলে অবশ্যই পরবর্তী মাসিক এর তারিখ পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।

অর্থাৎ যে তারিখে মাসিক হওয়ার কথা ছিল তখন মাসিক না হলে পরবর্তী মাসে মাসিক হওয়ার তারিখ পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। তখন মাসিক না হলে অবশ্যই প্রেগন্যান্সি টেস্ট করতে হবে। অনেক সময়  সহবাসের পর মাসিক অনিয়মিত হয়ে যায় । অনেক স্ত্রীলোকের বিয়ের পর মাসিক অনিয়মিত হয়ে যায়। এটি একটি স্বাভাবিক বিষয় তবে দীর্ঘদিন চলতে থাকলে অবশ্যই ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে।

👉 প্রথমবার সহবাসের পর রক্তক্ষরণ হলে করণীয়

প্রথম যৌন মিলনের পর মেয়েদের যোনিতে রক্তপাত হতে পারে৷ কেননা হাইমেন ছিড়ে যাওয়ার কারনে এমন রক্তপাত স্বাভাবিক ঘটনা৷ তাই ভয়ের কিছু নেই৷ কিছু সময় পর এমনিতেই রক্ত বন্ধ হয়ে যায়। যদি বন্ধ না হয় সে ক্ষেত্রে ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে।

রক্ত বন্ধের জন্য Xamic ক্যাপসুল খেতে হবে সকাল, দুপুর, রাত - তিনবারে তিনটি ক্যাপসুল৷ এভাবে তিন দিন পর্যন্ত খেতে পারবে৷ রক্ত বন্ধ হলে ঔষধ সেবন বন্ধ করতে হবে৷ যদি ব্যথা হয় তাহলে প্যারাসিটামল খেলেই ঠিক হবে। সকল ঔষধ ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করে খেতে হবে।

👉 নিয়মিত মাসিক কত দিন পর পর হয়

 মেয়েদের সাধারণত চাঁদের মাসের সঙ্গে মিল রেখে মাসিক হয়। অর্থাৎ প্রতিটি মাসিক চক্র 28 দিন হিসাবে গণনা করা হয়। প্রতি 28 দিন অন্তর অন্তর মাসিক হতে পারে। মাসিকের সময়কাল ৩ (তিনদিন), ৫ (পাঁচদিন) এবং ৭ (সাতদিন) স্থায়ী হয়। 

এক্ষেত্রে একবার মাসিক ভালো হওয়ার 21 দিন পর মাসিক শুরু হাবে। 


👉 মাসিক চলাকালীন সহবাস করা নিরাপদ কিনা?

মাসিক চলাকালীন সহবাস করলে আপনার স্ত্রীর অনেক যৌন বাহিত রোগ সৃষ্টি হতে পারে। ইসলামিক দৃষ্টিতে মাসিক চলাকালীন

সহবাস করা পুরোপুরি ভাবে নিষেধ। এটা আপনাদের দুজনের স্বাস্থের জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে।

আর মাসিকের আগের সাত দিন এবং পরের সাত দিন

নিরাপদ সময়। এদিনগুলি আপনি কনডম বা পিল ছাড়া

সহবাস করতে পারেন।

👉 দেরিতে মাসিক হওয়ার কারণ কি?

মাসিক দেরিতে বা  অনিয়মিত হওয়ার বিভিন্ন কারণ থাকতে পারে। এর জন্য তেমন কোন সমস্যা হয়।

তবে কারো কারো ক্ষেত্রে সমস্যা দেখা দিতে পারে। মেয়েদের শরীরে প্রতিমাসে রক্তের একটা অতিরিক্ত অংশ মাসিক বা মেন্স, ঋতুস্রাব হিসেবে বের হয়ে যায় এটি একটি প্রাকৃতিক নিয়ম। তবে শরীরে কোন প্রকার রোগব্যাধি থাকলে ঋতুস্রাব অনিয়মিত বাড়িতে হতে পারে। অনেক সময় শরীর দুর্বল থাকলে এমনটা হতে পারে।  যদি একমাস পরেও মাসিক না হয় তবে অবশ্যই প্রেগনেন্সি টেস্ট করতে হবে।


👉 মাসিক না হলে কতদিন পর প্রেগনেন্সি টেস্ট করব?

প্রথম মাসে অবশ্যই দ্বিতীয় তারিখ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। অর্থাৎ এই মাসের 1 তারিখ মাসিক হওয়ার ডেট ছিলো অথচ হয়নি, এই ক্ষেত্রে প্রেগনেন্সি টেস্ট করার জন্য আপনাকে পরের মাসের 1 তারিখ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। এর আগে টেস্ট করলে প্রেগনেন্সি পজেটিভ নাও আসতে পারে।

👉 মাসিক হওয়ার কতদিন পর নিরাপদ সহবাস করা যায়?

 মাসিক হওয়ার পূর্বে এবং পরে সাতদিন নিরাপদ সহবাস এর সময়। তবে অনেক ক্ষেত্রে এই সময় গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। সেজন্য অবশ্যই সর্তকতা অবলম্বন করা উচিত। 

পরিশেষে বলা যায় যে মাসিক একটি প্রাকৃতিক নিয়ম অনুসারে হয়ে থাকে যা সৃষ্টিকর্তা নারীদেরকে প্রতিমাসে দিয়েছেন । এটি মেয়েদের জন্য একটি শারীরিক উপাদান। যদি কোন কারনে নিয়মিত মাসিক হওয়া থেকে বিরত থাকে তবে অবশ্যই ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে। মাসিক নিয়মিত না হওয়ার সবচেয়ে বড় কারণ হচ্ছে প্রেগনেন্সি হওয়া। তাই মাসিক না হলে প্রেগনেন্সি টেস্ট করা ছাড়া কিংবা ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া অন্য কোন ঔষধ গ্রহন করা থেকে বিরত থাকুন।

এতে গর্ভের সন্তানের ক্ষতি হতে পারে।

নিয়মিত মাসিক হওয়া মেয়েদের শরীরের জন্য অত্যন্ত জরুরী। যারা নিয়মিত জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল সেবন করেন তাদের মাসিক পিল সেবনের 21 দিনের মাথায় শুরু হয়ে থাকে। এবং মাসিক শুরু হওয়ার এক থেকে দুই দিনের মধ্যেই আবার পিল খাওয়া শুরু করতে হয়। এক্ষেত্রে অবশ্যই নিয়মিত পিল সেবন করতে হবে। না হলে অনাকাঙ্ক্ষিত প্রেগনেন্সি হওয়ার সম্ভাবনা ও ঝুঁকি বেড়ে যায়।

যদি কোন কারণে প্রেগনেন্সি হয়ে যায় তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের শরনাপন্ন হন। এবং গর্ভের সন্তানের কোনো ক্ষতি করা থেকে বিরত থাকুন। মনে রাখবেন ভ্রুণ হত্যা জঘন্যতম অপরাধ।

এটি একটি হত্যাকান্ডের শামিল। 

পরিশেষে সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন এবং নিয়মিত সুস্বাদু খাদ্য গ্রহণ করবে। সুষম খাদ্য গ্রহণের মাধ্যমে মানুষের  রোগ ব্যাধি কম হয়।


➤ তাহলে আজ এ পর্যন্তই অন্য একদিন আসবো অন্য কোন একটি বিষয়ের উপর আপনাদেরকে জানাতে ততক্ষণ সবাই ভাল থাকবেন আল্লাহ হাফেজ।


আর্টিকেলটি ভালো লাগলে অবশ্যই আমাদেরকে কমেন্ট করে জানাবেন। 


এরপর আরো কোন সম্পর্কে আপনি আমাদের সাইটে আরও আর্টিকেল দেখতে চান তা আমাদেরকে জানাতে ভুলবেন না।


👉 লেখাটি গুগল ভয়েস টাইপ ব্যবহার করে লেখা হয়েছে। বানান ভুল হলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন।


নিয়মিত আমাদের সাইট ভিজিট করুন এরকম আরও অনেক তথ্য পেয়ে যাবেন।

আমাদের ফেসবুক পেজ ☞ Facebook


ইউটিউব ☞ YouTube

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url